হিমঘরে রাখার ৭ ঘণ্টা পর নড়েচড়ে উঠল ‘লাশ’

777.jpg

প্রতিদিন ডেস্ক: ভারতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়েছিলেন বিদ্যুৎমিস্ত্রি শ্রীকেশ কুমার (৪০)। উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এরপর তাঁর জায়গা হয় মর্গের হিমঘরে। প্রায় সাত ঘণ্টা পর নড়েচড়ে উঠলেন। প্রমাণ করলেন, লাশ নন, জলজ্যান্ত মানুষ তিনি।

শুনতে অবিশ্বাস্য হলেও এমনই এক ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশের মুরাদাবাদে। গালফ নিউজের এক প্রতিবেদনে তথ্য জানানো হয়েছে।

শ্রীকেশ কুমার গত বৃহস্পতিবার রাতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হন। রাতেই স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। পরদিন হাসপাতালের একজন কর্মী তাঁকে হিমঘরে রাখেন। প্রায় সাত ঘণ্টা পর পুলিশকে লাশের ময়নাতদন্তে সম্মতি জানাতে কাগজপত্রে সই করতে যান শ্রীকেশের ঘনিষ্ঠজন মধুবালা। এ সময় তিনি খেয়াল করেন শ্রীকেশ কুমার নড়াচড়া করছেন।

এ ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। এতে দেখা যায়, মধুবালা বলছেন, তিনি (শ্রীকেশ কুমার) মারা যাননি। এটা কীভাবে সম্ভব! দেখুন, তিনি কিছু বলতে চাচ্ছেন, তিনি নিশ্বাস নিচ্ছেন।

মুরাদাবাদের প্রধান মেডিকেল সুপার শিব কুমার বলেছেন, রাত তিনটার দিকে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক যখন রোগী দেখেন, তখন রোগীর হৃৎস্পন্দন ছিল না। চিকিৎসক রোগীকে কয়েক দফায় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখার পর মৃত ঘোষণা করেন। পরদিন সকালে পুলিশের একটি দল ও রোগীর পরিবার তাঁকে জীবিত পায়। এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এখন আমরা রোগীর জীবন বাঁচানোকেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি।

শিব কুমার এটিকে অন্যতম দুর্লভ ঘটনা বলে আখ্যা দিয়েছেন। তিনি এ-ও বলেছেন, ‘আমরা এ ঘটনাকে কর্তব্যে অবহেলা বলতে পারি না।’

শ্রীকেশ কুমার বর্তমানে মিরাটের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাঁর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে জানা গেছে। মধুবালা বলেছেন, এখনো শ্রীকেশের জ্ঞান ফেরেনি। তাঁরা দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের বিরুদ্ধে শিগগিরই একটি অভিযোগ করবেন।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top