বাংলাদেশে এই প্রথম খুলনায় নতুন মাদক ‘ডোব’ উদ্ধার : গ্রেফতার ৩

dob-madok33.jpg

সোহাগ দেওয়ান, খুলনা: মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ঢাকা মেট্টো (উত্তর) কার্যালয়ের একটি অভিযানিক দল মাদক দ্রব্য আইস ও এলএসডি খুজতে এসে খুলনায় নতুন মাদক ডোব উদ্ধার করলো। বাংলাদেশের এই প্রথম ডিওবি (উঙই) নামের মাদক ধরা পড়লো। এ মাদক আমদানি ও সারাদেশে বিক্রির পরিকল্পনার সাথে জড়িত ৩জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত মাদকের আনুমানিক মূল্য ১০ লাখ টাকা বলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সুত্র জানিয়েছেন।
ডার্ক ওয়েব ব্যবহার করে ক্রিপ্টোকারেন্সি বিটকয়েন পেমেন্ট করে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পোল্যান্ড থেকে নতুন এ মাদক সংগ্রহ করা হয়ে বলে গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিরা জানিয়েছেন। তাদের কাছ থেকে ৯০টি ডিওবি (DOB) Blotter/Strip নামক মাদক জব্দ করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের বিশেষ ওই টিম।

গ্রেফতার হওয়া আসামিরা হলো- খুলনা মহানগরের খালিশপুর থানাধিন মুজগুন্নী আবাসিক এলাকার মৃতঃ আফসার উদ্দিন আহম্মেদ’র ছেলে (ডিপ্লে¬ামা ইঞ্জিনিয়ার) মোঃ আসিফ আহম্মেদ শুভ (৩১), সে খুলনার পলিটেকনিক্যালের ছাত্র ছিলেন। সোনাডাঙ্গা থানাধিন বয়রা পূজাখোলা এলাকার অশোক কুমার শর্মার পুত্র অর্ণব কুমার শর্মা (৩০), সে খুলনার নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ছাত্র ছিলেন, বর্তমানে অনলাইন ভিত্তিক ক্রাফট ব্যবসা করতেন। অপর আসামি খুলনার বয়রাস্থ সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ম্যানেজার মোঃ মামুনুর রশিদ (৩২), সে বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জের সিংজোর বাজারের মোঃ জাহাঙ্গীর মোল্লার ছেলে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সুত্র জানায়, গত ২১ নভেম্বর সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ঢাকা এলিফ্যান্ট রোড শাখা থেকে ৫টিএল.এস.ডি’র Blotter/Strip জব্দ করা হয়। সেখান থেকে জানাযায় এই চক্রের মূল হোতা খুলনায় অবস্থান করছে। সেই সূত্র ধরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিচালক (অপারেশনস্ ও গোয়েন্দা) কুসুম দেওয়ান এ বিষয়ে দিক নির্দেশনা দেন।

এরপর ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের অতিরিক্ত পরিচালক মোঃ ফজলুর রহমান ও ঢাকা মেট্রো কার্যালয় (উত্তর)’র উপ পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান’র তত্তাবধায়নে সহকারী পরিচালক মোঃ মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে ২২ নভেম্বর ঢাকা থেকে বিশেষ ওই টিম খুলনা এসে অভিযান পরিচালনা করে প্রথমে আসামি আসিফ আহম্মেদ শুভকে গ্রেফতার করেন।
পরবর্তীতে আসামি আসিফকে আহম্মেদ শুভকে কুরিয়ার সার্ভিসের Blotter/Strip প্রেরণের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদে সে জানায়, উক্ত ৫টি এল.এস.ডি’র Blotter/Strip সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ম্যানেজার মোঃ মামুনুর রশীদের সহায়তায় তথ্য গোপন করে ঢাকায় প্রেরণ করে। পরবর্তীতে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে আরও জানায় তার বন্ধু অর্ণব কুমার শর্মা বাসায় বিপুল পরিমান ডিওবি(উঙই) নামক নতুন মাদক আছে। উক্ত টিম অর্ণব কুমার শর্মা বাসায় অভিযান পরিচালনা করে ৯০(নব্বই)টি ডিওবি(উঙই) ইষড়ঃঃবৎ/ঝঃৎরঢ় নামক মাদক উদ্ধার করেন। এরপর তাদের তথ্যমতে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের ম্যানেজার মোঃ মামুনুর রশিদকে গ্রেফতার করা হয়।

 

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ঢাকা মেট্টো কার্যালয় উত্তর কার্যালয়ের উপ পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান জানান, দেশে নতুন মাদককের বিস্তার রোধে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশে ইয়াবা (২০০২ সাল), সীসা(২০০৮ সাল), আইস (২০১৯ সাল), এলএসডি (২০১৯ সাল)সহ বিভিন্ন মাদকের প্রথম চালান মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর জব্দ করে। এরই ধারাবাহিকতায় খুলনা থেকে ৪-ব্রোমো-২,৫-ডাইমিথোক্সি এমফিটামাইন যা সাধারণ ডাইমিথোক্সি ব্রোমো এমফিটামাইন, ব্রোল এমফিটামাইল, ব্রোমো-ডিএমএ অথবা ডিওবি(উঙই) নামক নতুন একটি মাদক উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছি আমরা। এটি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৮ (সংশোধিত ২০২০) এর “ক” শ্রেণীভুক্ত মাদক।

তিনি আরও জানান, আমরা প্রথমে একটি কী ওয়ার্ড “ঝঃধংয” এর সূত্র ধরে গত আগষ্ট মাস থেকে অনুসন্ধান করতে থাকি এবং আমরা ধারণা পাই যে, একটি নতুন মাদক দেশে প্রবেশ করেছে। পরবর্তীতে আমরা কয়েকটি চক্রকে আইসসহ গ্রেফতার করি। তাদের দেয়া তথ্য তথ্যমতে আমরা এল.এস.ডি ও ডিওবি(উঙই) মাদকের এই চক্রটির সন্ধান পাই। এসকল মাদকের সাথে জড়িত বাকীদেও সণাক্ত ও গ্রেফতারে অধিদপ্তরের অভিযান অব্যহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

 

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top
error: Content is protected !!