দুই প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি মিছিল থেকে উত্তেজনা, ৭ পুলিশ আহত

image-516257-1643866663-1.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট: ভোটের দিন যতই এগিয়ে আসছে, ততই উত্তেজিত হয়ে উঠছে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের নির্বাচনি পরিস্থিতি। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের তিন ভাগ্নের বিরুদ্ধে দাঁড়ানো মেয়র কাদের মির্জার তিন প্রার্থীর ইউনিয়নগুলোতে প্রায়শই ঘটছে বিচ্ছিন্ন ঘটনা।

এরই ধারাবাহিকতায় দুপক্ষের পাল্টাপাল্টি মিছিল থেকে উত্তেজনা দেখা দিলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এ সময় মিছিলকারীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে ওসিসহ সাত পুলিশ সদস্য ও উভয়পক্ষের আরও চারজন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে মেয়র মির্জার ছেলে মির্জা মাসরুর কাদের তাশিক রয়েছে।

বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে রামপুর ইউনিয়নের বামনিবাজারে এ ঘটনা ঘটেছে।

আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন— কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মো. সাজ্জাদ রোমন, এসআই মো. আবদুল আউয়াল সুমন, মো. আবদুল মোমেন, কনস্টেবল মো. আলমগীর হোসেন, মো. তানভীর আহাম্মেদ, উথোয়াই চিং রোয়াজা ও বিধান দেবনাথ। তাদের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, বুধবার দুপুরে বসুরহাট একটি কুলখানি অনুষ্ঠানে আবদুল কাদের মির্জার হাতে শারীরিক লাঞ্ছিত হন রামপুর ইউপির সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আনসার উল্যা। এ ঘটনার প্রতিবাদে রাতে বামনিবাজারে ঝাড়ু মিছিল করেন কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ প্রার্থী ভাগ্নে সিরাজিস সালেকিন রিমনের সমর্থক ও স্থানীয়রা।

পরে কাদের মির্জার ছেলে মির্জা মাসরুর কাদের তাশিকের নেতৃত্বে তাদের প্রার্থী ইকবাল বাহার চৌধুরী সমর্থকরা পাল্টা মিছিল বের করে। মিছিলটি স্কুল গেটে এলে উভয়পক্ষ মুখোমুখি হলে উত্তেজনা দেখা দেয় এবং হাতাহাতি শুরু হয়। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে সাত পুলিশসহ অন্তত ১১ জন আহত হন।

জেলা পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, উভয়পক্ষের পাল্টাপাল্টি মিছিল কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি করার চেষ্টা করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করে। এ সময় মিছিলকারীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। পরে ঘটনাস্থলে ম্যাজিস্ট্রেট, র্যাব, ডিবি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

তিনি আরও বলেন, পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার ঘটনায় ১৬ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত আরও ১০০-১৫০ জনকে আসামি করে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে।

উল্লেখ, আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি কোম্পানীগঞ্জের আট ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল থাকায় কোনো পক্ষকেই নৌকা প্রতীক দেওয়া হয়নি।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top
error: Content is protected !!