ব্যাংকের চেয়ারম্যানদের নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নতুন নির্দেশনা

ijopkolkop.jpg

প্রতিদিন ডেস্ক:দেশের তফসিলি ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যান কিংবা নীতিনির্ধারণী ভূমিকায় থাকা পরিচালকরা একই ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি বা সহযোগী প্রতিষ্ঠানেরও নীতিনির্ধারণী পদে থাকছেন। কেউ কেউ পৃথক কোম্পানি গঠন করে সে কোম্পানির মাধ্যমে নিজ ব্যাংকের সঙ্গে ব্যবসাও করছেন। এতে ভেঙে পড়ছে ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা ও সুশাসন। এ অবস্থায় ব্যাংকের চেয়ারম্যানসহ নীতিনির্ধারণী ভূমিকায় থাকা ব্যক্তিদের সাবসিডিয়ারি বা সহযোগী প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, পরিচালক কিংবা সদস্য পদে থাকতে মানা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বুধবার (১১ মে) বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি’ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।
প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, কোনও ব্যাংক পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান বা পর্ষদ সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত পর্ষদের সহায়ক কমিটি যথা নির্বাহী কমিটি, অডিট কমিটি ও ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত কোনো ব্যক্তি ওই ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি বা ব্যাংকের অর্থায়নে গঠিত ও পরিচালিত কোনও কোম্পানি, প্রতিষ্ঠান বা ফাউন্ডেশনের পরিচালনা পর্ষদ বা গভর্নিং বডি, যে নামেই অভিহিত হোক না কেন, এর চেয়ারম্যান, পরিচালক কিংবা সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে পারবেন না।
ব্যাংকের নীতিনির্ধারণী পদে দায়িত্ব পালনরত এ ধরনের কোনও ব্যক্তি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানের পদে থাকলে চলতি বছরের ৩০ জুনের মধ্যে পদত্যাগ করতে হবে। পদত্যাগের বিষয়টি জুলাইয়ের প্রথম সাত কর্মদিবসের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংককে জানাতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, কোনও ব্যক্তি ব্যাংকের শেয়ারহোল্ডার পরিচালক বা মনোনীত কিংবা প্রতিনিধি পরিচালক বা স্বতন্ত্র পরিচালক হিসেবে ন্যূনতম এক বছর মেয়াদে দায়িত্ব পালন করলে ওই মেয়াদপূর্তি বা অবসর বা অব্যাহতির পর ওই ব্যক্তি কখনই ওই ব্যাংকের নিয়মিত বা চুক্তিভিত্তিক কোনও পদে নিয়োগ বা নিযুক্ত হতে পারবেন না। ব্যাংকের কোনও পদে এরই মধ্যে কোনও নিয়োগ দেওয়া হলে তাকে আগামী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে পদত্যাগ করতে হবে। এ ধরনের পদত্যাগের বিষয়টিও জুলাইয়ের প্রথম সাত কর্মদিবসের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংককে জানাতে বলা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ব্যাংকের পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় স্বার্থের সংঘাত পরিহার এবং নিরপেক্ষতা, পেশাগত মান ও সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১-এর ২৩(১)(ক) ধারায় কোনও ব্যক্তি কোনও ব্যাংকের পরিচালক হলে একই সময়ে তিনি অন্য কোনও ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা বীমা কোম্পানির পরিচালক থাকবেন না মর্মে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। অনুরূপভাবে ব্যাংক পরিচালনায় শৃঙ্খলা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে ২০২১ সালের ১২ মে প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে বেশকিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়।

এর পরও সুষ্ঠুভাবে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ এবং ব্যবস্থাপনা কর্তৃক নিজ নিজ দায়িত্ব পালনে যথাযথ ভূমিকা পালন আবশ্যক বিধায় ব্যাংক পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা নিশ্চিতকরণের ক্ষেত্রে সৃষ্ট প্রতিবন্ধকতা পরিহার হওয়া বাঞ্ছনীয়। এজন্যই ব্যাংকের পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় অধিকতর শৃঙ্খলা ও সুশাসন নিশ্চিত করতে নতুন নির্দেশনাগুলো জারি করা হয়েছে।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top