বিয়ে করতে দেশে এলেন দুবাই প্রবাসী, লাগেজের মালামাল গায়েব

fffgde.jpg

প্রতিদিন ডেস্ক:ঢাকার চেলে মির্জা সেলিম, ১৩ বছর ধরে থাকেন দুবাইয়ে। পরিবারের চাওয়া অনুযায়ী বসতে যাচ্ছেন বিয়ের পিঁড়িতে। পরিকল্পনা অনুযায়ী ১ মাসের ছুটি নিয়ে দেশে এসেছেন গত ৮ জুলাই। বিয়ে বলে কথা, বিয়ে উপলক্ষে বিদেশে কেনা নানান জিনিসপত্রে ভর্তি ছিল লাগেজ। কিন্তু ঢাকায় হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নেমে সেই লাগেজ খুঁজে পাননি সেলিম। চার দিন পর লাগেজ ফিরে পেলেও প্রায় ১০ কেজি ওজনের জিনিসপত্র গায়েব। শুধু সেলিম নন, প্রতিনিয়ত এমন ভোগান্তিতে পড়ছেন তার মতো অনেক প্রবাসী।

ভুক্তভোগী মির্জা সেলিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ৮ জুলাই আমি দুবাই থেকে এয়ার এরাবিয়ার ফ্লাইটে (G9516) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসি। বিমানবন্দরের লাগেজ বেল্টে আমার লাগেজ পাইনি। সেদিন বিমানবন্দরে সন্ধ্যা পর্যন্ত ছিলাম, কিন্তু লাগেজ আর পাইনি। এয়ার এরাবিয়ার কর্মকর্তারা সেদিন আমাকে বলেছিল, লাগেজ পরেরদিন বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে।

বিয়ের দিনক্ষণ ঘনিয়ে আসছে কিন্তু লাগেজ না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েন সেলিম। লাগেজ পেতে তাকে ১২ জুলাই পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। তিনি বলেন, আমি এয়ার এরাবিয়ার দেওয়া মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করার জন্য চেষ্টা করেছি, কিন্তু তারা কেউ ফোন ধরেনি। ১২ জুলাই আমার মোবাইল নম্বরে কুরিয়ার সার্ভিস এসএ পরিবহন থেকে ফোন আসে, তারা তাদের অফিসে থেকে আমাকে লাগেজ সংগ্রহ করতে বলে।
রাজধানীর দনিয়া এলাকায় থাকেন প্রবাসী মির্জা সেলিম। যাত্রাবাড়ী এলাকায় এসএ পরিবহনের অফিসে গিয়ে নিজের লাগেজ নিয়ে আসলেন বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে দেখেন রূপার অলংকার, মেয়েদের ঘড়ি, কসমেটিকসহ প্রায় ২৫ হাজার টাকার জিনিসপত্র গায়েব। লাগেজের চেইন ভাঙ্গা।

মির্জা সেলিম বলেন, এসএ পরিবহনের অফিসে গেলে তারা বিভিন্ন কাগজে আমার স্বাক্ষর নেয়। দেখলাম আমার লাগেজ প্লাস্টিক দিয়ে র‌্যাপিং করা, কিন্তু আমি লাগেজ র‌্যাপিং করিনি। এসএ পরিবহনের কর্মীরা জানালেন, এভাবেই নাকি বিমানবন্দর থেকে লাগেজ এসেছে তাদের কাছে। লাগেজে র‌্যাপিং করা থাকায় তৎক্ষণাত আমি আর কোনও বিষয় খেয়াল করতে পারিনি। বাড়ি গিয়ে দেখি আমার লাগেজের চেইন ভাঙ্গা, জিনিসপত্র নেই।

ক্ষোভ প্রকাশ করে মির্জা সেলিম বলেন, বিয়ে উপলক্ষে পরিবার-পরিজনের জন্য কিছু জিনিসপত্র আনলাম, সেগুলো গায়েব। এমন যদি হতো পুরো লাগেজ হারিয়েছে, তাহলে ভিন্ন কথা। লাগেজে কিছু আছে, কিছু নেই মানে কী? কেউ না কেউ খুলে জিনিসপত্র নিয়ে গেছে। আমাদের টিকিটের টাকা থেকে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা, উন্নয়নসহ নানা রকম চার্জ সরকার নেয়। এটাই কি নিরাপত্তার নমুনা। আমি প্রথম এমন ভুক্তভোগী এমন না— শত শত প্রবাসী হয়রানির শিকার, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। আমি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালককে লিখিতভাবে এ বিষয়ে জানিয়েছি। আমি লিখিতভাবে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ে জানিয়েছি।

জানা গেছে, সম্প্রতি ব্যাগেজ লেফট-বিহাইন্ড বেড়ে যাওয়ায় অসংখ্য যাত্রীকে এ ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। সাধারণত বাজেট (লো কস্ট ক্যারিয়ার) এয়ারলাইন্সগুলোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ব্যাগেজ লেফট-বিহাইন্ড হয়। বর্তমানে শুধু বাজেট এয়ারলাইন নয়, সবধরনের এয়ারলাইনের ক্ষেত্রে ব্যাগেজ লেফট-বিহাইন্ড বেড়েছ মাত্রাতিরিক্ত। এরমধ্যে জাজিরা এয়ারওয়েজ, সালাম এয়ার, কাতার এয়ারওয়েজ, সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইন্স, ফ্লাই দুবাই, এয়ার এরাবিয়া, ওমান এয়ার, গালফ এয়ার, কুয়েত এয়ারওয়েজের ক্ষেত্রে ব্যাগেজ লেফট-বিহাইন্ড বেশি হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী এয়ারলাইন লেফট-বিহাইন্ড হওয়া লাগেজ যাত্রীর বাড়িতে কুরিয়ার করে পাঠিয়ে দিবে। তবে অনেক যাত্রী অভিযোগ করছেন কুরিয়ার থেকে সংগ্রহ করা লাগেজে থেকে মাল চুরি হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম বলেন, কোনও যাত্রীর ক্ষেত্রে যদি এমন ঘটনা ঘটে তাহলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ধরনের ঘটনা যাতে না ঘটে সেজন্য এয়ারলাইনগুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যাত্রী যথাযথ প্রক্রিয়ায় আবেদন জানালে ক্ষতিপূরণ পাবেন।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top
error: Content is protected !!