বঙ্গোপসাগরে চলছে বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ নৌ টহল ও মহড়া

hbgffg.webp

প্রতিদিন ডেস্ক:বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশ ও ভারতীয় সমুদ্রসীমার নির্ধারিত এলাকায় দুই দেশের নৌবাহিনীর অংশগ্রহণে চতুর্থবারের মতো শুরু হয়েছে যৌথ টহল ‘করপ্যাট’ ও দ্বিপাক্ষিক মহড়া ‘বঙ্গোসাগর’। কমান্ডার ফ্লোটিলা ওয়েস্টের তত্ত্বাবধানে এ যৌথ টহল ও মহড়া গত রোববার থেকে শুরু হয়েছে, চলবে আগামী শুক্রবার পর্যন্ত।

যৌথ এ টহল ও মহড়ায় অংশ নিয়েছে ভারতীয় নৌবাহিনীর দুটি যুদ্ধজাহাজ আইএনএস কোরা ও আইএনএস সুমেধা। অন্যদিকে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর দুটি যুদ্ধজাহাজ বানৌজা আলী হায়দার ও বানৌজা আবু উবাইদাহ এ টহল ও মহড়ায় অংশ নিচ্ছে।
যৌথ টহল শেষে ভারতীয় নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ দুটি আজ মঙ্গলবার দুপুরের পর মোংলা বন্দর জেটিতে এসে পৌঁছায়। এ সময় জাহাজ দুটিকে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সুসজ্জিত বাদক দল ঐতিহ্যবাহী রীতিতে ব্যান্ড পরিবেশন করে অভিবাদন জানায়। কমান্ডার খুলনা নৌ অঞ্চলের পক্ষ থেকে বানৌজা মোংলা ঘাটির অধিনায়ক জাহাজ দুটিকে মোংলা বন্দরে অভ্যর্থনা জানান। এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের প্রতিনিধিসহ বাংলাদেশ নৌবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কমান্ডার প্রদীপ কুমারের নেতৃত্বে ১৪ জন কর্মকর্তা ও ১২১ জন নাবিক নিয়ে আইএনএস কোরা এবং কমান্ডার সুমিত মালিকের নেতৃত্বে ১২ জন কর্মকর্তা ও ১১০ জন নাবিক নিয়ে আইএনএস সুমেধা এ টহল ও মহড়ায় অংশ নিচ্ছে। বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশী দেশ দুটির মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা ও বন্ধুতপূর্ণ সুসম্পর্ক আরও জোরদারের লক্ষ্যে ২০১৮ সাল থেকে এ যৌথ টহল অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।
দুই দেশের নির্ধারিত সমুদ্র এলাকায় অবৈধভাবে মৎস্য আহরণ, চোরাচালান, মানব পাচার, জলদস্যুতা, মাদক পাচারসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড নিরসনের লক্ষ্যে এ যৌথ টহল ও মহড়া অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মাধ্যমে দুই দেশের নিজ নিজ জলসীমায় সমুদ্রবিষয়ক অপরাধ সম্পর্কিত তথ্য আদান-প্রদান, তথ্যাদির সঠিক ব্যবস্থাপনা, সমুদ্রপথে অবৈধ কার্যক্রম পরিচালনাকারী জাহাজগুলোকে চিহ্নিতকরণ এবং বিভিন্ন অপরাধ নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি আঞ্চলিক সমুদ্র নিরাপত্তা, সমুদ্র নিরাপত্তার ঝুঁকি মোকাবিলা ও সমুদ্র অর্থনীতির উন্নয়নে আরও কার্যকর ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে বলে আশা করা যায়।

শুভেচ্ছা সফরের অংশ হিসেবে ভারতীয় জাহাজ দুটির কর্মকর্তা ও নৌ সদস্যরা সৌজন্য সাক্ষাতসহ বাংলাদেশ নৌবাহিনী আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবে। শুভেচ্ছা সফর শেষে ২৬ ও ২৭ মে বঙ্গোপসাগরে যৌথ মহড়া ‘বঙ্গোসাগর’–এ অংশগ্রহণ শেষে জাহাজ দুটি নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করবে।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top
error: Content is protected !!