বঙ্গবন্ধু সিনিয়র ডিভিশন ফুটবল লীগ ব্রাদার্স ও সাবেক খেলোয়াড় সংঘের জয়

Polish_20220730_204725977-scaled.jpg

ক্রীড়া প্রতিবেদক//
জেলা ফুটবল এসোসিয়েশন খুলনা আয়োজিত এবং বসুন্ধরা গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু সিনিয়র ডিভিশন ফুটবল লীগে জয় পেয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও সাবেক খেলোয়াড় সংঘ। ব্রাদার্স ইউনিয়ন ১-০ গোলে হারিয়েছে খুলনা আবাহনী ক্রীড়া চক্রকে এবং একই ব্যবধানে সাবেক খেলোয়াড় সংঘ হারিয়েছে মৌসুমি একাদশকে।
শনিবার (৩০ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় খুলনা জেলা স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় ব্রাদার্স ইউনিয়ন বনাম খুলনা আবাহনী ক্রীড়া চক্র। মাঠে নামার আগে ব্রাদার্সের চেয়ে শক্তিতে এগিয়ে ছিল আবাহনী। তাদের প্রথম ম্যাচে টাউন ক্লাবকে হারিয়ে ছিল ৩-০ গোলে। ব্রাদার্স তাদের প্রথম খেলায় ১-৩ গোলে মহেশ্বরপাশা ক্লাবের কাছে পরাজিত হয়েছিল। সে ক্ষেত্রে সবাই ধারনা করেছিল আবাহনী জিতবে। কিন্তু সকলের ধারনাকে ভুল প্রমানিত করে জয় তুলে নিয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন।

শুরুতেই উভয় দল গোছানো ফুটবল শুরু করে। আক্রমন-পাল্টা আক্রমনের মধ্যে দিয়ে চলতে থাকে খেলা। তখনও বল পজিশনে আবাহনী এগিয়ে। হঠাৎ আক্রমন বাড়িয়ে দেয় ব্রাদার্স। খেলার ৩২ মিনিটের সময় বামপ্রান্ত থেকে কর্ণার কিকের বল ছোট ডি বক্সের উপর আসলে দলের ৭নং জার্সি পরিহিত খেলোয়াড় রহমান হেড করে বল জালে পাঠিয়ে দেয় (১-০)। পিছিয়ে থেকে গোল পরিশোধের আশায় আক্রমন শুরু করে আবাহনী। কিন্তু ফরওয়ার্ডের ব্যর্থতায় অনেকগুলো সহজ গোল মিস করাতে পিছিয়ে থেকে বিরতীতে যেতে হয়েছে আবাহনীকে। বিরতী থেকে ফিরে উভয় দলই আক্রমন-পাল্টা আক্রমন করতে থাকে। তখনও তাদের বল পজিশন সমানে সমান। ব্রাদার্স চায় গোল সংখ্যা বাড়াতে আর আবাহনীর প্রয়োজন সমতা। এসময় উভয় দলই বেশ কয়েকটি সহজ গোল মিস করে। গোল পরিশোধের আশায় আক্রমন করেও আবাহনীর খেলোয়াড়রা ব্যর্থ হয় ব্রাদার্সের শক্ত রক্ষণভাগের কাছে। ফলে পরাজয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে খুলনা আবাহনী ক্রীড়া চক্রকে। এ খেলাটি পরিচালনা করেন রেফারী আব্দুর রহমান ঢালী, আলী আকবর, পারভেজ আলম ও মাহবুবুর রহমান। ম্যাচ কমিশনার ছিলেন নৃপেন রায়।

বিকেল সোয়া ৪টায় দিনের দ্বিতীয় খেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মৌসুমি একাদশ ও সাবেক খেলোয়াড় সংঘ। উভয় দল মন মাতানো ফুটবল উপহার দেয় দর্শকদের। প্রথমার্ধে উভয় দলই এগিয়ে যেতে পারত কিন্তু অনেকগুলো সহজ গোল মিস করাতে গোলশুণ্যে ভাবে বিরতীতে যেতে হয়েছে তাদের। বিরতী থেকে ফিরে উভয় দলই এগিয়ে যাওয়ার আশায় আক্রমন-পাল্টা আক্রমন করতে থাকে। তখনও তাদের বল পজিশন সমানে সমান। খেলার ৫৩ মিনিটের সময় বামপ্রান্ত থেকে বল ছোট ডি বক্সের সামনে মাইনাস করলে দলের ১২নং জার্সি পরিহিত খেলোয়াড় তপু ফাঁকা বারে বল পাঠিয়ে দেয় (১-০)। গোল হজম করে পরিশোধের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে মৌসুমি। একর পর এক আক্রমন করতে থাকে তারা। তবে সাবেক খেলোয়াড় সংঘের রক্ষণভাগ ভাঙ্গতে ব্যর্থ হয়। শেষ দিকে সাবেক খেলোয়াড় সংঘ দেখেশুনে পরিছন্ন খেলা শুরু করে। উভয় দলের জন্য ম্যাটি ছিল গুরুত্বপুর্ণ। উভয় দল তাদের প্রথম ম্যাচে পরাজিত হয়। এ খেলাটি পরিচালনা করেন রেফারী মোক্তার হোসেন মিঠু, আকিব জাভেদ, গোলাম রসুল ও সাইফুল ইসলাম। ম্যাচ কমিশনার ছিলেন শহিদুল ইসলাম লালু।
মাঠে উপস্থিত ছিলেন জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট আলহাজ্ব মো. সাইফুল ইসলাম, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এস এম মোয়াজ্জেম রশিদী দোজা, এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো. ইউসুফ আলী, কোষাধ্যক্ষ নুরুল ইসলাম খান কালু, কার্যনির্বাহী সদস্য এ মনসুর আজাদ, সদস্য ও লীগ কমিটির সম্পাদক সুজন আহমেদ ও সদস্য ও লীগ কমিটির সহ-সম্পাদক মনিরুজ্জামান মহসীন। ৩১ জুলাই রবিবার জেলা স্টেডিয়ামে দু’টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। দুপুর আড়াইটায় দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে উইনার্স ক্লাব বনাম টাউন ক্লাব। বিকেল সোয়া ৪টায় দ্বিতীয় খেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে এসবিআলী ফুটবল একাডেমি ও ডুমুরিয়া তরুন সংঘ।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top
error: Content is protected !!