বেনজেমার জোড়ায় রিয়ালের জয়

benzema.jpg

ম্যাচের শুরুর দিকে লক্ষ্যভেদ করে রিয়াল মাদ্রিদকে এগিয়ে নিয়েছিলেন করিম বেনজেমা। কিন্তু শাখতার দোনেৎস্ক বিরতির আগে সমতায় ফিরে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেয়। বেনজেমা ঝলক তখনও শেষ হয়নি। বিরতির পর জয়সূচক গোলটি এসেছে এই স্ট্রাইকারের কাছ থেকেই। ফ্রেঞ্চ তারকার জোড়ায় চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়াল মাদ্রিদ ২-১ গোলে হারিয়েছে শাখতার দোনেৎস্ককে। যদিও প্রথম লেগে জয় এসেছিল ৫-০ গোলের ব্যবধানে। অন্য ম্যাচে এসি মিলান ১-১ গোলে ড্র করেছে পোর্তোর সঙ্গে।

‘ডি’ গ্রুপে রিয়াল মাদ্রিদ চার ম্যাচে তৃতীয় জয়ে ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে। শেষ ষোলোতে ওঠার সম্ভাবনা বেশ জোরালো তাদের। শাখতার দোনেৎস্ক সমান ম্যাচে তৃতীয় হারে আগের এক পয়েন্ট নিয়ে বিদায় ঘণ্টা বেজে উঠেছে।

ম্যাচ শুরুর ২ মিনিটে লুকা মদরিচের বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া শট ডিফেন্ডার প্রতিহত করলে লিড নেওয়া হয়নি। ৩ মিনিট পর মদরিচের শট গোলকিপার প্রতিহত করে দলকে ম্যাচে রাখেন।

১০ মিনিটের ঝড় সামলে শাখতার কিছুটা গুছিয়ে নিয়ে আক্রমণে যায়। শাখতারের অ্যালান প্যাট্রিকের বক্সের বাইর থেকে ডান পায়ের জোরালো শট পোস্টে লেগে ফিরে আসলে আফসোসে পুড়তে হয় সমর্থকদের।

এর ৪ মিনিট পরেই রিয়াল মাদ্রিদে উচ্ছ্বাস। ম্যাচের ১৪ মিনিটে বক্সের ভেতরে থেকে করিম বেনজেমা ডান পায়ের জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন। ভিনিসিয়ুস জুনিয়র দলকে গোল পেতে সহায়তা করেন। ১৭ মিনিটে লুকা মদরিচের শট গোলকিপার প্রতিহত করলে এগিয়ে যাওয়া হয়নি।

সুযোগ বুঝে আক্রমণে ওঠা শাখতার ৩৯ মিনিটে সফল হয়। অ্যালান প্যাট্রিকের এসিস্টে বক্সের ভিতরে ডান পায়ের জোরালো ভলিতে ফেরনান্দো ম্যাচে সমতা ফেরান।

বিরতির পর উভয় দল গোলের ‍সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু সফল হয়েছে শুধু রিয়াল মাদ্রিদই। ৬১ মিনিটে ভিনিসিয়ুস জুনিয়রের পাসে করিম বেনজেমা ডান পায়ের জোরালো শট আবারও দলকে এগিয়ে নেন।

শাখতার ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেনি। রেকর্ড ১৩ বারের চ্যাম্পিয়ন রিয়ালও পারেনি আর ব্যবধান বাড়াতে। ২-১ স্কোরলাইন রেখেই কার্লোস আনচেলত্তির দল মাঠ ছেড়েছে। আর এর মধ্য দিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে হাজার গোলের মাইলফলক স্পর্শ করলো।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top
error: Content is protected !!