মোংলায় বিয়ের অনুষ্ঠানে কোরআন তেলওয়াতের আয়োজন

mongla.jpg

মোংলা প্রতিনিধিঃমোংলা উপজেলায় বিবাহের অনুষ্ঠানে কোরআন তেলওয়াতের আয়োজন করে নজির বিহীন দৃষ্টি স্থাপন করলেন কনের বাবা। রবিবার (১৯ ডিসেম্বর)সকালে সরেজমিন ঘুরে দেখা যায় বাগেরহাটের মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের জয়মনি ৯নং ওয়ার্ডের আবু সাইদ শেখের বড় মেয়ে সাদিয়া আক্তার (১৯ বছর) এর সাথে ঐ একই গ্রামের জাহাঙ্গীর ফরাজির পুত্র হাফেজ মোঃ রিয়াজের)২৪ বছর) বিয়ের অনুষ্ঠানে গান বাজনা না বাজিয়ে মাদ্রাসার এতিম ৩০ জন ছাত্রদের দাওয়াত দিয়ে কোরআন তেলওয়াতের ব্যবস্থা করেছেন কনের বাবা আবু সাইদ। এতে এলাকার মানুষেরা মাঝে অন্য রকম অনুভূতি দেখা দিয়েছে।এলাকার মানুষের কাছে প্রসংশায় ভাসছে কনের বাবা। অপসংস্কৃতি বাদ দিয়ে ইসলামি সংস্কৃতি ফিরে আসবে বলে মনে করেন এলাকার জনসাধারণ। এই বিষয় জানতে চাইলে জয়মনি হাফিজিয়া মাদ্রাসার হুজুর নুরে আলম বলেন”বিয়ে একটি সর্বজন স্বীকৃত সবচেয়ে পবিত্র এবং সামাজিক বন্ধন”।একজন প্রাপ্ত বয়স্ক তরুণ এবং একজন প্রাপ্ত বয়স্ক তরুণী সমাজের এবং ধর্মীয় রীতিনীতি সমাজের এবং পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে বিয়ে নামক পবিত্র বন্ধনে আবদ্ধ হয়। প্রায় প্রত্যেক ধর্মে বিয়ের সম্পর্কে আলোচনা ,বাণী দেওয়া হয়েছে। বিয়ে হলো সমাজ স্বীকৃত বংশবৃদ্ধি করার একটি প্রক্রিয়া। ইসলাম শান্তির ধর্ম।ইসলাম সবসময় শান্তি এবং সমৃদ্ধির জীবনব্যবস্থা।ইসলাম এমন একটি জীবনব্যবস্থা যেখানে প্রাপ্ত বয়স্ক হলেই ছেলেমেয়ের বিয়ে দেওয়ার কথা স্পষ্ট করে বলছেন।বিয়ের মাধ্যমে দুইজন ব্যক্তি সংসার শুরু হয়।তাই ইসলামে বিভিন্ন আয়াত নাজিল হয়েছে বিয়ে নিয়ে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কনের বাবা আবু সাইদ বলেন আমার মেয়ে সাদিয়া আক্তারের সাথে জাহাঙ্গীর ফরাজির পুত্র হাফেজ রিয়াজের সাথে গত দের মাস আগে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিদের উপস্থিতিতে কাবিন করিয়া রাখিয়াছিলাম।আজ ইসলামি শরিয়ত অনুযায়ী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে স্বামীর হাতে তুলে দিচ্ছি।আর এ জন্যই আমি এ কোরআন তেলাওয়াতের আয়োজন করেছি।আমি বিশ্বাস করি এতে আমার মেয়ের সংসার জীবন অনেক সুখে ও সাচ্ছন্দ্যে কাটবে।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top
error: Content is protected !!