খুবির সামনের সড়কে গতিরোধক ও ওভারব্রিজ নির্মাণের দাবি

prothomalo-bangla_2021-01_bacaad6f-7871-4d5e-84ce-290dd2fdb700_084931KU_khulna_university-1.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট: খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে দুর্ঘটনা এড়াতে গতিরোধক ও ওভারব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আজ বুধবার এ দাবিতে খুলনা সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) খান গোলাম কুদ্দুসের স্বাক্ষর রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, গতকাল মঙ্গলবার রাতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে সড়ক দুর্ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে যেন এ ধরনের ঘটনা না ঘটে, সে জন্য প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ওই আবেদন করা হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনের সড়কটি চার লেনে উন্নীত করার কাজ চলছে। সড়কটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চলাচলের প্রধান সড়ক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এ সড়কে প্রতিদিন শুধু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রায় ২০০ গাড়ি চলাচল করে। এ ছাড়া প্রতিদিন বিভিন্ন রুটের শত শত গাড়ি অতি দ্রুতগতিতে এ সড়কে চলাচল করে। এর ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকটি দুর্ঘটনাপ্রবণ হয়ে উঠেছে, যা শিক্ষার্থী তথা বিশ্ববিদ্যালয়–সংশ্লিষ্ট সবার জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।

চিঠিতে আরও বলা হয়, ওই সড়কের পাশেই বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন ইনস্টিটিউট অব এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ (আইইআর) ভবন, মেডিকেল সেন্টার ও রাস্তার বিপরীত পাশে সরকারি দেলদার আহমেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয় আছে। ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে একটি, নির্মাণাধীন আইইআর ভবন ও মেডিকেল সেন্টারের সামনে একটিসহ মোট দুটি গতিরোধক এবং একটি ওভারব্রিজ দ্রুত নির্মাণ করা প্রয়োজন।

এ বিষয়ে খুলনা সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আনিসুজ্জামান বলেন, মহাসড়কটির ওই অংশে যাতায়াতে দুর্ভোগ কমাতে প্রথম স্তরের কার্পেটিং করা হয়েছে। আরও দুটি স্তর বসার পর সড়কের কাজ আংশিক শেষ হবে। গতিরোধক ও ওভারব্রিজের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তাঁর সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে একটি চিঠিও পেয়েছেন।

আনিসুজ্জামান বলেন, বর্তমান সড়ক পরিবহন আইন অনুযায়ী মহাসড়কে কোনো গতিরোধক স্থাপনের নিয়ম নেই। তারপরও কী করা যায় সেটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে পরিকল্পনা করা হবে। গতিরোধক না দেওয়া গেলেও জেব্রা ক্রসিং দেওয়া যায় কি না, ভাবা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই স্থানে ভবিষ্যতে একটি ওভারব্রিজ নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে ওভারব্রিজ নির্মাণ করতে সময় লাগবে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের ওই সড়কের শহরের জিরোপয়েন্ট থেকে ময়লাপোতা পযন্ত চার লেনে উন্নীত করার কাজ চলছে। সড়ক ভালো হয়ে যাওয়ায় একদিকে যেমন গাড়ির আধিক্য বেড়েছে, অন্যদিকে গাড়ির গতিও বেড়েছে। এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মনে করছে, সেখানে গাড়ির গতি কমানোর জন্য ও শিক্ষার্থীদের নিরাপদে ক্যাম্পাসে প্রবেশের জন্য বিকল্প কোনো ব্যবস্থা করা জরুরি।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top
error: Content is protected !!