গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা, সিদ্ধান্ত হয়নি

9efd9e69e752431c5a5747fab6877629-572a0da186954.jpg

প্রতিদিন ডেস্ক:
গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব আমলে নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত পৌঁছাতে পারেনি বিইআরসি। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) দাম বৃদ্ধির বিষয়ে কমিশনের এক জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু সুনির্দিষ্ট সিদ্ধান্ত ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

বৈঠকটির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাবগুলো আমলে নেওয়া হবে কিনা সে বিষয়ে আরও যাচাই বাছাই করতে হবে। পেট্রোবাংলার চিঠিতে তথ্যের ঘাটতি রয়েছে। সেজন্য তাদের কাছে পর্যাপ্ত তথ্য চাইবে কমিশন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কমিশনের একজন সদস্য নাম না প্রকাশ করার শর্তে বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, আমরা ছয়টা গ্যাস বিতরণ কোম্পানির গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব ইতোমধ্যে পেয়েছি। তাদের প্রস্তাব এবং গ্যাস সঞ্চালন কোম্পানি জিটিসিএল এর সঞ্চালন চার্জ বৃদ্ধির প্রস্তাব পর্যালোচনা করছি। তবে পেট্রোবাংলা তাদের চিঠিতে যে তথ্যগুলো দিয়েছিল সেটার সাপোর্ট হিসেবে রেকর্ডপত্র দলিলাদি চেয়েছে কমিশন। আগামীকাল পেট্রোবাংলাকে সে চিঠি পাঠানো হবে। এরপর আমরা বসবো। এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। কোনও প্রস্তাব কমিশন এখনও আমলে নেয়নি। পেট্রোবাংলার কাগজ পেলে আবার আলোচনায় বসা হবে।

প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহ এবং চলতি সপ্তাহ জুড়ে দেশের গ্যাস বিতরণ কোম্পানি এবং বিপিডিবি কমিশন নির্ধারিত ছকে গ্যাস এবং বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব দিয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে আজ ২৬ জানুয়ারি (বুধবার) কমিশনে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকে প্রস্তাবগুলোর সার্বিক বিষয় আলোচনা হয়। তাতে দেখা যায়, পেট্রোবাংলা তাদের যে চিঠি দিয়েছে তাতে সব তথ্য নেই। এ বিষয়ে আরও তথ্য প্রয়োজন বলে মনে করছে কমিশন। তাই তথ্যগুলো চেয়ে পেট্রোবাংলাকে চিঠি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।

কমিশন সূত্র বলছে, পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে যদি মনে করা হয় দাম বৃদ্ধি প্রয়োজন সেক্ষেত্রে প্রস্তাবগুলো আমলে নেওয়া হবে। আর যদি মনে করা হয় দাম বৃদ্ধির প্রয়োজন নেই সেক্ষেত্রে প্রস্তাবগুলো ফেরত পাঠানো হবে। সেক্ষেত্রে আপাতত আর দাম বৃদ্ধি পাবে না।

সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেছেন, বিদ্যুৎ এবং জ্বালানির দর বৃদ্ধি করা হবে না। করোনা পরিস্থিতির মধ্যে গ্যাস এবং বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করা হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনার মধ্যে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় মানুষের জীবনযাত্রায় এমনিতেই বিরূপ প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। এরমধ্যে যদি গ্যাস এবং বিদ্যুতের দাম বেড়ে যায় সেক্ষেত্রে মানুষের জীবনে বাড়তি চাপ পড়বে।

কেপি

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top
error: Content is protected !!